বেদখল রেলের জমি


hadayet প্রকাশের সময় : অক্টোবর ৩, ২০২২, ৫:৩৮ পূর্বাহ্ন / ২২
বেদখল রেলের জমি

কমলাপুর স্টেশন নির্মাণের আগে ঢাকার প্রথম রেলস্টেশন ছিল রাজধানীর ফুলবাড়িয়ায়। সেই পুরনো স্টেশনের ৩.৯৭ একর জমি বর্তমানে বেদখল। স্বাধীনতার ৫০ বছর পার হলেও সেই লাখো কোটি টাকার সম্পদ উদ্ধার করা যায়নি। এ জমি নিয়ে তিনটি মামলা হয়েছে। একটির রায় রেলের পক্ষে হলেও বাকি দুটি এখনো চলমান। একইভাবে পাশেই আনন্দবাজারে ২.৮৭ একর রেলের জমি দখলে নিয়ে সাততলা ভবন নির্মাণ করে মার্কেট গড়ে তোলা হয়েছে। কিন্তু রাজনৈতিক কারণে ওই জায়গা উদ্ধার সম্ভব হচ্ছে না। ফুলবাড়িয়া ও আনন্দবাজারের মতো দেশের ৩ হাজার ৬১৪ একর রেলের জমি বেদখল হয়েছে। শুধু তা-ই নয়, এর বাইরে ১ হাজার ৮৪১ একর জমির কোনো হদিস নেই। দখলবাজরা এসব জমির দলিল, পর্চা ও নথি গায়েব করে দিয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, এই নথি গায়েবকান্ডে জড়িত রেলওয়ের ভূসম্পত্তি বিভাগ, রেল ভবন থেকে শুরু করে পূর্ব ও পশ্চিম রেলের বিভিন্ন পর্যায়ের   অসাধু কর্মকর্তারা। তাদের যোগসাজশে দখলবাজরা এসব জমি রেকর্ড করে নিয়েছেন নিজেদের নামে। ফলে সব মিলিয়ে ৫ হাজার ৪৫৫ একর জমিই এখন হাতছাড়া বাংলাদেশ রেলওয়ের। তবে বাস্তব চিত্র আরও ভয়াবহ বলে জানিয়েছেন রেল-সংশ্লিষ্টরা। তাদের মতে, কাগজে-কলমে যা-ই থাক বাস্তবে এর চেয়েও বেশি জমি দখলদারদের কবজায় চলে গেছে। ব্রিটিশ শাসনামলের বেঙ্গল রেলওয়ে থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে বিশাল ভূসম্পদ পেয়েছিল রেলওয়ে। তাদের হিসাবে, জমি রয়েছে ৬১ হাজার ৮৬০ দশমিক ২৮ একর। এর মধ্যে রেলওয়ে অপারেশন কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে ৩০ হাজার ৭৬৮ দশমিক ৫১ একর জমি। এ ছাড়া লাইসেন্স ও লিজকৃত জমি রয়েছে ১৩ হাজার ২৩ একর। দখলকৃত অব্যবহৃত জমির পরিমাণ ১২ হাজার ৫৪৩ একর। তবে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের বর্তমানে ভূমির পরিমাণ ৬১ হাজার ৮২০ দশমিক ৩৫ একর। এর মধ্যে দখলে ৫৮ হাজার ৬০৬ দশমিক ৫৭ একর। অর্থাৎ প্রায় ৩ হাজার ৬১৪ একর জমি বেদখলে।’ তবে আধুনিক পদ্ধতিতে জরিপের পর ২০১৪ সালে রেলওয়ে কর্তৃক নিয়োগ পাওয়া বেসরকারি প্রতিষ্ঠান শেলটেক কনসালট্যান্ট লিমিটেডের প্রতিবেদন অনুযায়ী, রেলের জমির পরিমাণ ৫৯ হাজার ৭৫৫ একর। তাদের হিসাবে বেদখল জমির পরিমাণ ৪ হাজার ৬৩৬ একর। এ ছাড়া ১ হাজার ৮৪১ একর জমির কোনো হদিস নেই। দখল হওয়া এসব জমির মধ্যে পূর্ব ও পশ্চিম রেলওয়েতে ১০ বছরের চেষ্টায় ১ হাজার ১৮৫ একর উদ্ধার করলেও আবার বেদখল হয়েছে। জানা গেছে, রেলপথের দুই পাশে ১০ ফুট জায়গা খালি রাখার বিধান রয়েছে। রেল আইন অনুযায়ী, রেলপথের দুই পাশের দুই ফুট জায়গায় সব সময় ১৪৪ ধারা জারি থাকার কথা। অথচ ঢাকার কমলাপুর থেকে টঙ্গী ও নারায়ণগঞ্জ রেলপথের দুই পাশে গড়ে উঠেছে অসংখ্য অবৈধ স্থাপনা, অস্থায়ী বাজার। রেলওয়ে সূত্র জানায়, সরকারি, আধা-সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দখলে রয়েছে রেলের ৯২২ একর জমি। বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের দখলে রয়েছে ২ হাজার ৮২৮ একর জমি। আর ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের নামে দখল করা হয়েছে রেলের ৯০ একর জমি। ইজারায় ব্যবহৃত হচ্ছে ১৪ হাজার ৪৭৩ একর জমি। কৃষিকাজের জন্য রেলওয়ের ইজারা দেওয়া জমি ব্যবহৃত হচ্ছে বাণিজ্যিক কাজে। এসব জমিতে গড়ে তোলা হয়েছে বহুতল ভবন। রেল ভবন সূত্রে জানা যায়, এ-সংক্রান্ত হাজারো মামলা রয়েছে। রাজধানীর ফুলবাড়িয়া রেলস্টেশনের ৩ দশমিক ৯৭ একর জমি দখল হওয়ার চার দশকেও তা উদ্ধার করা যাচ্ছে না মামলার কারণে। রেলের পাকশী বিভাগে সর্বাধিক জমি দখল করেছেন দখলবাজরা। এ বিভাগে ২৭ হাজার একর জমির মধ্যে দখল করা হয়েছে ২ হাজার ৬০০ একর জমি। ঢাকা বিভাগে ১৭ হাজার ১৬৯ একর জমির মধ্যে ৩ হাজার ৩৯৩ একর ইজারাদারদের দেওয়া হয়েছে। আর এ বিভাগে দখল হয়েছে ৬৮৪ একর জমি। লালমনিরহাট বিভাগে ১০ হাজার ৮৯৮ একর জমির মধ্যে দখল হয়েছে ৫১৮ একর জমি। চট্টগ্রাম বিভাগের ৭ হাজার ২৭১ একর জমির মধ্যে দখল হয়েছে ১৬৯ একর জমি। এসব দখলের পাশাপাশি মন্ত্রণালয়সহ সরকারি সংস্থাও দখল করেছে বিপুল পরিমাণ রেলের জমি। রেলের তথ্য অনুযায়ী, সারা দেশে প্রায় ৩ হাজার কিলোমিটার রেলপথ রয়েছে। নব্বইয়ের দশকে অনেক রেলপথ ও স্টেশনে রেল চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরিত্যক্ত এসব সম্পদ দখল হয়েছে বেশি। এমনকি রেলের জমি ‘বিক্রি’ হয়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটছে। বিশেষ করে ১৯৯১ সালের পর থেকে এ পর্যন্ত রেলের ১৩ হাজার একরের বেশি জমি ইজারা নেন ক্ষমতাসীন দলগুলোর নেতা-কর্মীরা। এসব জমি বেদখল হওয়ার আশঙ্কা করছেন রেল-সংশ্লিষ্টরা। এসব জমি কৌশলে নিজেদের নামে কাগজপত্র করে নেওয়ার চেষ্টায় রয়েছেন কিছু ইজারাদার। রেলের জমি নিয়ে কত মামলা চলছে তার তথ্য মেলেনি রেল ভবনে। তবে ভূসম্পদ বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা ধারণা দেন, মামলার সংখ্যা হাজারের বেশি। মামলা পরিচালনাতেও রয়েছে সমস্যা। রেলের আইনজীবীদের মামলা পরিচালনার সম্মানীও কম। ভালো আইনজীবীরা তাই রেলের হয়ে মামলা লড়তে চান না। আদালতে দখলদারদের পক্ষ নেন এমন গুরুতর অভিযোগও রয়েছে রেলের আইনজীবীদের বিরুদ্ধে। সংশ্লিষ্টদের দাবি, স্বাধীনতার পর থেকে রেলের জমি বেদখল হতে থাকলেও উদ্ধারে কার্যকর চেষ্টা চালায়নি কোনো সরকার। ২০১১ সালে রেলপথ মন্ত্রণালয় গঠনের পর মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালন করা চারজন মন্ত্রীই প্রতিশ্রুতির বন্যা বইয়ে দেন। প্রতিটি সভা-সমাবেশে বেদখল জমি উদ্ধারে প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু প্রতিশ্রুতিই সার। রেলের এসব হাতছাড়া জমি উদ্ধার করতে সাত বছরের জেল-জরিমানার বিধান রেখে আলাদা একটি ‘রেলওয়ে সম্পত্তি (অবৈধ দখল উদ্ধার) আইন, ২০১৬’ তৈরি করেছে সরকার। কিন্তু কোনো এক অদৃশ্য কারণে জমি উদ্ধারে কঠোর হচ্ছে না রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। আইনটি প্রয়োগ করে কাউকে সাজা দেওয়া হয়েছে এমন নজিরের কথা বলতে পারেননি সংশ্লিষ্ট কোনো কর্মকর্তা। তবে এমন বক্তব্য মানতে নারাজ রেলসচিব ড. মো. হুমায়ুন কবীর। তিনি গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘অবৈধ দখলে থাকা রেলের জমি উদ্ধারে নিয়মিত অভিযান চলমান আছে। গত এক বছরে সারা দেশের ৯২.০৮৮ একর জমি উদ্ধার করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে হাতছাড়া হওয়া সব জমিই উদ্ধার করা হবে।’ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেলওয়ে ভূসম্পত্তি বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা জানান, জমি উদ্ধার কিংবা অবৈধ স্থাপনা সরানোর জন্য রেলের নিজস্ব কোনো যান-সরঞ্জাম নেই। উদ্ধার অভিযানের জন্য বুলডোজার ও সরঞ্জাম ভাড়া আনা হয়। দিনে একেকটি বুলডোজার (ছোট-বড় সাইজ) ৪০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া দিতে হয়। এ ছাড়া উচ্ছেদ অভিযানের জন্য শ্রমিক নিয়োগ করতে হয়। অবৈধ জমি উদ্ধারের নামে সাজসরঞ্জাম নিয়ে কদিন পর পরই অভিযানে যায় রেল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু উদ্ধার হওয়া জমি আয়ত্তে রাখতে পারে না।