বিএনপির নিজেকে প্রশ্ন করা জরুরি- তারা কি পাকিস্তানের চেয়েও বড় বিরোধীতাকারী?


hadayet প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৩০, ২০২৪, ৩:৪১ পূর্বাহ্ন / ২৮
বিএনপির নিজেকে প্রশ্ন করা জরুরি- তারা কি পাকিস্তানের চেয়েও বড় বিরোধীতাকারী?

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশের উন্নয়ন ও এগিয়ে যাওয়া নিয়ে যখন সারাবিশ্ব বিস্মিত তখনও বিএনপি কোন উদ্যোগকেই স্বাগত জানায় না। দেশের যা কিছু মন্দ তা নিয়ে কথা বললে, ভালো দিকগুলোকে নিয়েও ইতিবাচক কথা বলাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বিরোধী দল বিএনপি সেই পথে নেই। এমনকি পাকিস্তানের  প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নতির ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। দেশের কোন উন্নয়ন দেখতে না পাওয়া নিয়ে বিএনপির এই অবস্থানকে সমালোচনা করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, বিএনপি সবসময়ই বিরোধীতার রাজনীতি করে আসছে। তারা দায়িত্বশীল বিরোধীদল হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে পারেনি। দেশের মানুষ যখন উন্নয়নের সুফল ভোগ করছে সেটাকেও তারা গ্রহণ করতে পারছে না।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ সম্প্রতি বলেছেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দিকে তাকালে এখন তাদের লজ্জা হয়। বৃহস্পতিবার ডনের এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। বাংলাদেশের বিকাশমান অর্থনীতি প্রসঙ্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ তৎকালীন ‘পূর্ব পাকিস্তানের’ কথা স্মরণ করেন। তিনি বলেন, সে সময় ‘পূর্ব পাকিস্তানকে’ দেশের বোঝা মনে করা হতো। কিন্তু তারা শিল্পায়নের প্রবৃদ্ধিতে বিস্ময়কর অগ্রগতি অর্জন করেছে।

মতবিনিময় সভায় শাহবাজ শরিফ বলেন, ‘আমি তখন খুবই ছোট ছিলাম যখন…আমাদেরকে বলা হতো যে এটা আমাদের কাঁধে একটি বোঝা। আজ আপনারা সবাই জানেন, সেই ‘বোঝা কোথায় পৌঁছেছে (অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে)। এবং এখন আমরা যখন তাদের দিকে তাকাই, তখন আমরা লজ্জা বোধ করি।’

এরপরপরই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে পাকিস্তান প্রশংসা করে, অথচ বিরোধী দল উন্নয়ন দেখতে পায় না। ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের উন্নতি দেখে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ লজ্জিত হন। অতীতে পূর্ব পাকিস্তানকে তাদের কাছে বোঝা মনে হতো। এখন সে বোঝাই উন্নয়নে এগিয়ে গেছে। সে উন্নয়ন দেখে তিনি (শাহবাজ) লজ্জিত হন। বিএনপি যতটা অপপ্রচার করে, তাদের শাহবাজ শরিফের বক্তব্য থেকে প্রকৃত সত্য শিক্ষা নেওয়ার অনেক কিছু আছে।

এদিকে শিক্ষা নেওয়া দূরে থাক ওবায়দুল কাদেরের এই মন্তব্যের পরে রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেন, সরকারের অপরিকল্পিত নগরায়ণ, বনজঙ্গল উজাড়, নদী-নালা, খাল-বিল ভরাট এবং তাপবিদ্যুৎ ও কয়লাবিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করে মানুষের জীবনকে সংকটে ফেলে দিয়েছে। বাংলাদেশকে গ্যাস চেম্বারে পরিণত করা হয়েছে। তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করার কারণে ফল গাছে এখন আর ফল ধরছে না। ভালো কিছু দেখা দূরে থাক বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ওবায়েদুল কাদেরের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের মুখে মুখে পাকিস্তানের বিরোধিতা করেন। কয়েক দিন আগে তাদের উন্নয়ন নিয়ে পাকিস্তান কথা বলায় কাদের সাহেব বলেছেন, পাকিস্তান তাদের উন্নয়ন দেখলেও বিএনপি দেখে না। এখন তারা পাকিস্তানের প্রশংসায় গদগদ।’

বিএনপির এই বক্তব্যের মধ্যে অদায়িত্বশীলতা রয়েছে উল্লেখ করে রাজনৈতিক বিশ্লেষক সুভাষ সিংহ রায় বলেন, বিএনপি কখনোই দেশ নিয়ে ভাবেনি। তাদের দল যেভাবে গঠিত হয়েছে তাতে তারা কেবল ক্ষমতার রাজনীতি করতে চেয়েছেন। পাকিস্তানের এই বোধদয় আমাদের জন্য যে কত বিশাল অর্জন তা বুঝতে বিএনপি অক্ষম। তাহলে কি বিএনপি পাকিস্তানের চেয়েও বেশি বাংলাদেশ বিরোধী? বিরোধীদলের জায়গায় থেকে সরকারের ভালো উদ্যোগগুলোকে চিহ্নিত করা এবং সরকারের মন্দ কাজের গঠনমূলক সমালোচনা করা প্রধান কাজ হলেও কখনোই কোন ভালো কাজকে উন্নয়নকে গ্রহণ করার মধ্যে বিএনপি নেই।