‘ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চায় শেখ কামালের অবদান অনস্বীকার্য’


hadayet প্রকাশের সময় : অগাস্ট ১৪, ২০২৩, ৩:৫০ পূর্বাহ্ন / ৪৪
‘ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চায় শেখ কামালের অবদান অনস্বীকার্য’

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে যুব সমাজকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে এনেছিলেন। তাই ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চায় শেখ কামালের অবদান অনস্বীকার্য। শেখ কামালের বিরুদ্ধে একদল কু-চক্রী মহল যুগে যুগে অপপ্রচার চালিয়ে গেছে। শেখ কামালের অবদানকে নেতিবাচকভাবে তারা উপস্থাপন করে জাতিকে বিভ্রান্ত করার পাঁয়তারা চালিয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে শেখ কামাল ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের একজন সংগঠক, ক্রীড়া ও সংস্কৃতিনুরাগী। তিনি বিশৃঙ্খলমুক্ত দেশ গড়তে কাজ করে গেছেন। স্বাধীনতার পর শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়াঙ্গনে নতুন জোয়াড় এনেছিলেন তিনি। আজকের গতিশীল, প্রযুক্তিগত উন্নয়নের বাংলাদেশে তার অবদান অনস্বীকার্য বলে মন্তব্য করেছেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।

বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রবিবার সকাল ১১টার দিকে বাউবির গাজীপুরস্থ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব সম্মেলন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বাউবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার, বাউবির প্রো-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. নাসিম বানু, ট্রেজারার অধ্যাপক মোস্তফা আজাদ কামাল, রেজিস্ট্রার ড. মহা: শফিকুল আলম, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী শিক্ষক ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. কেএম রেজানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ড. মো. শহীদুর রহমান প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বাউবির সহকারী অধ্যাপক মো: মশিউর রহমান ও টুম্পা রানী দে।