মাঠ ছাড়বে না আওয়ামী লীগ, আজ কর্মসূচি ঘোষণা


hadayet প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২৩, ৪:৫৪ পূর্বাহ্ন / ৪৯
মাঠ ছাড়বে না আওয়ামী লীগ, আজ কর্মসূচি ঘোষণা

বিএনপি ঘোষিত কর্মসূচির ধরন বুঝে পাল্টা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপিকে রাজপথ ফাঁকা ছেড়ে দেওয়া হবে না। শান্তি সমাবেশ, উন্নয়ন শোভাযাত্রা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ কর্মসূচি পালন করবে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ একাধিক নেতা কালের কণ্ঠকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিদেশে অবস্থান করায় গতকাল সোমবার দলের কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়নি। আজ মঙ্গলবার সকালে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর এক সভা অনুষ্ঠিত হবে। এই সভায় বিএনপির কর্মসূচির বিপরীতে কর্মসূচি ঠিক করা হবে। এ ছাড়া বিএনপির কর্মসূচির ধরন বুঝে সতর্ক অবস্থানে থাকবেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিএনপির উদ্দেশ্য হলো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ঘটিয়ে এর দায় সরকারের  ওপর চাপানো। তারা সন্ত্রাসের মধ্য দিয়ে জনগণকে ভীত ও বিপর্যস্ত করতে চায়। আমরা এর বিরুদ্ধে ধারাবাহিক কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকব। কেন্দ্রীয়ভাবে কর্মসূচি নেওয়া হবে, আবার পরিস্থিতি বুঝে স্থানীয় পর্যায়েও কর্মসূচি পালন করা হবে।

বিএনপির হিংসাত্মক কর্মসূচির বিরুদ্ধে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা শান্তিপূর্ণ প্রতিরোধ জারি রাখব।’

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা কালের কণ্ঠকে জানান, বিএনপির জনসমাবেশ ধরনের কর্মসূচির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ শান্তি সমাবেশ কর্মসূচি পালন করবে। বিএনপির শোভাযাত্রা, পদযাত্রার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ উন্নয়ন শোভাযাত্রা কর্মসূচি ঘোষণা দেবে। বিএনপির সমাবেশের ধরন ও পরিধি বুঝে রাজপথে লোক সমাগম করবে আওয়ামী লীগও।

বিএনপির ঘোষিত ১৩ দিনের কর্মসূচির মধ্যে আট দিন রাজধানী ঢাকায় কর্মসূচি পালন হবে।

ফলে ঢাকা ও আশপাশের জেলা, মহানগরের নেতাকর্মীদের বিশেষ নির্দেশনা দেবে আওয়ামী লীগ। ঢাকা জেলা ও মহানগরে একাধিক কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

ঢাকা বিভাগের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এক-দুই দিনের মধ্যেই আমরা কর্মসূচি ঘোষণা করব। আগামী জাতীয় নির্বাচন পর্যন্ত আমাদের শান্তি সমাবেশ, উন্নয়ন শোভাযাত্রা কর্মসূচি চলতে থাকবে।’

আজ ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জে বিএনপির সমাবেশের দিনে সেখানে সতর্ক অবস্থানে থাকবেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুণ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ঢাকা জেলায় আমরা নিয়মিত কর্মিসভা করে নেতাকর্মীদের দিকনির্দেশনা দিচ্ছি, ঐক্যবদ্ধ রাখছি। বিএনপির কর্মসূচির দিনে কেরানীগঞ্জের নেতাকর্মীদের সতর্ক অবস্থানে থাকার নির্দেশনা থাকবে।’

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা জানান, যখন যেখানে যেমন কর্মসূচি প্রয়োজন তা গ্রহণ করা হবে। আগামী নির্বাচন পর্যন্ত বিরোধীদের আন্দোলন মোকাবেলা এবং সরকারের উন্নয়ন প্রচারের মধ্য দিয়ে নির্বাচনী প্রস্তুতি চলতে থাকবে। পর্যায়ক্রমে দেশের সব বিভাগীয় শহরে বড় ধরনের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এগুলোতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন।