নায়ক ফারুক সিঙ্গাপুরে সুস্থ, তবে…


hadayet প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ৮, ২০২৩, ৩:৩৯ পূর্বাহ্ন / ১২
নায়ক ফারুক সিঙ্গাপুরে সুস্থ, তবে…

অনেকেই হয়তো ভুলে গেছেন বরেণ্য অভিনেতা ও সংসদ সদস্য আকবর হোসেন পাঠান ফারুকের কথা। সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন তাও দুই বছর হতে চলল। নতুন খবর হলো- বেশ কয়েক মাস ধরে এই চিত্রনায়ক সুস্থ। তবে সুস্থ হয়েও দেশের মাটিতে পা রাখতে পারছেন না ফারুক। কিন্তু কেন? বিষয়টি খোলাসা করেছেন ফারুকের স্ত্রী ফারহানা পাঠান।

হোয়াটসঅ্যাপে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, ‘আপনাদের ফারুক ভাই এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। শারীরিক কোনো জটিলতা নেই। দেশবাসীর দোয়া ছিল বলেই আমরা এখন তাঁর হাসিমুখ দেখতে পাচ্ছি।’ কিছুক্ষণ আলাপের পরই তাঁর কণ্ঠে ঝরে হতাশার সুর। এক পর্যায়ে তিনি বলেন, ‘দেশের মাটিতে ফিরতে তো সবারই মন চায়। চাইলেই কী ফেরা সম্ভব! সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে প্রায় দুই বছর চিকিৎসা নিচ্ছি। ওই হাসপাতালের চিকিৎসা অনেক ব্যয়বহুল। অনেক টাকা বিল হয়েছে।

সম্পত্তি বিক্রি ও ব্যাংকের টাকা দিয়ে কিছু বিল দিয়েছি। এখন চেষ্টা করছি বাকি বিল পরিশোধের। সব বিল পরিশোধ করলেই কেবল হাসপাতাল থেকে ছুটি মিলবে।’

কবে নাগাদ দেশে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে- এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘দেশে আসার জন্য ফারুক উদগ্রীব। জমে আছে সংসদীয় এলাকার অনেক কাজকর্ম। দেশে ফিরে কাজগুলো সারবেন বলেছেন। আগামী মার্চের মাঝামাঝি দেশে আসার ইচ্ছা রয়েছে। তবে সবকিছু নির্ভর করছে টাকা সংস্থানের ওপর। দেখা যাক কী হয়।’ হাসপাতালে প্রিয় নায়কের দিনকাল কেমন কাটছে? এ প্রশ্নে ফারহানা বলেন, ‘আমি সারাক্ষণই ফারুকের সঙ্গে ছায়ার মতো আছি। দুইজন গল্প করছি। এ জন্য সবসময় সে খোশমেজাজেই থাকে। ইবাদত-বন্দেগি করে সময় কাটছে তাঁর। কিছু সময় ঘুমিয়ে কাটে। অনেকেই ফোন করে খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। দেশের মানুষ ফারুককে কত ভালোবাসেন তা প্রতিনিয়ত ফোন পেয়ে বুঝছি। মাঝে মঝে এলাকার মানুষের সঙ্গে অল্পস্বল্প কথা বলছেন। দোয়া করবেন, যেন সব সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। আবার যেন ফারুক ফিরতে পারে সবার হৃদয়ে।’

২০২১ সালের ৪ মার্চ নিয়মিত চেকআপের জন্য সিঙ্গাপুর যান অভিনেতা ও ঢাকা-১৭ আসনের সংসদ সদস্য ফারুক। সেখানে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উচ্চ রক্তচাপ, মস্তিস্ক, স্নায়ুতন্ত্রের নানা সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। ছিল পুরোনো বেশ কিছু শারীরিক জটিলতাও। চার মাস ছিলেন ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ)। সেমি কোমায় কেটেছে আরও চার মাস। কয়েক মাস তাঁর শারীরিক অবস্থার কখনও উন্নতি, আবার কখনও অবনতি হয়েছে। ছিল নানা শঙ্কাও। তবে কখনও হাল ছাড়েননি তাঁর পরিবারের সদস্যরা, চালিয়েছেন চিকিৎসা। মাঝে শারীরিক অবস্থা এতটাই খারাপ হয়ে গিয়েছিল, তাঁকে দীর্ঘদিন লাইফ সাপোর্টেও রাখা হয়েছিল। এইচ আকবর পরিচালিত ‘জলছবি’ দিয়ে চলচ্চিত্রে আসেন ফারুক। পাঁচ দশকের বেশি সময়ের অভিনয় ক্যারিয়ারে অভিনয় করেন বহু দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্রে। ‘মিয়াভাই’ চলচ্চিত্রের সাফল্যের পর তিনি চলচ্চিত্রাঙ্গনে ‘মিয়াভাই’ হিসেবে খ্যাতি পান। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ নানা সম্মাননায় ভূষিত হন এই নন্দিত চিত্রনায়ক।